ভূঞাপুরে ভাইয়ের তৈরি যৌন বর্ধক হালুয়া খেয়ে ভাইসহ ২ জনের মৃতু

টাঙ্গাইলে ভাইয়ের তৈরি যৌন বর্ধক হালুয়া খেয়ে আপন ভাইসহ আরো একজনের মৃত্যু হয়েছে। এঘটনায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরো দু’জন। নিহত-আহতরা সাভারের আশুলিয়া এলাকায় গার্মেন্টসকর্মী।

জানা যায়, টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ধুবলিয়া গ্রামের সুজাত আলীর ছেলে নাসির ও মোতালেব দীর্ঘদিন যাবৎ সাভারের আশুলিয়ার একটি গার্মেন্টস কাজ করেন এবং ওই এলাকার একটি বাসায় ভাড়া থাকতেন। তাদের সাথে থাকতেন একই গ্রামের জয়নাল শেখের ছেলে জিল্লুর ও আবুল হোসেনের ছেলে শামীম।  বুধবার রাতে বড় ভাই নাসিরের তৈরি যৌন বর্ধক হালুয়া খেয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভোর ছয়টার দিকে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার ভাই মোতালেব ও জিল্লুর মারা যান। পরে পরিবারের লোকজন মোতালেবের মরদেহ গ্রামের বাড়ীতে নিয়ে আসে।

মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে ধুবলিয়া গ্রামের স্থানীয় ইউপি সদস্য মজিবর রহমান ভোরের বার্তাকে বলেন, বড় ভাই নাসির ১ মেয়ে ও ১ ছেলের জনক। সে দীর্ঘদিন ধরে সাভারের একটি গার্মেন্টসে চাকুরী করতো। সে দীর্ঘদিন কাজ করায় ছোট ভাই মোতালেব ও পাশ্ববর্তী বাড়ীর জিল্লুর এবং শামীমকে চাকুরী দিয়ে একই সাথে বসবাস করতো। নাসির বার্ধক্যজনিত কারণে নিজেই যৌন বর্ধক হালুয়া তৈরি করে খেত। ঘটনার দিন সে হালুয়া তৈরি করে কাজে চলে যায়। পরে তার ভাই মোতালেব ও অন্যরা সন্ধ্যা ছয়টার দিকে কাজ শেষে ঘরে এসে মাত্রাতিরিক্ত হালুয়া খেয়ে অসুস্থ হলে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মোতালেব ও জিল্লুর মারা যান। এঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে একই গ্রামের শামীম এবং পটুয়াখালীর অজ্ঞাত একজন চিকিৎসাধীন রয়েছে। মানবিক কারনে নিহত দু’জনের মরদেহ আইনগত ব্যবস্থা ছাড়াই দাফন করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ভূঞাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুছ ছালাম ঘটনাটির সত্যতা স্বীকার করেন।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।