বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী লতা মঙ্গেশকরের জীবন সংকটাপন্ন

বিনোদন ১১ নভেম্বর : উপমহাদেশের বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী সুরসম্রাজ্ঞী খ্যাত লতা মঙ্গেশকরের জীবন সংকটাপন্ন আজ সোমবার ভোররাতে সুরসম্রাজ্ঞীকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়ায় তাঁকে মুম্বাইয়ের ব্রিজ ক্যান্ডি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এই মুহূর্তে তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে। সেখানে ভেন্টিলেটর সাপোর্টে রাখা হয়েছে তাঁকে

খবরটি নিশ্চিত করেছে ভারতের সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দু, ইন্ডিয়ান টাইমস। তবে তাঁর অসুস্থতা নিয়ে পরিবারের পক্ষে এখনো পর্যন্ত কোনো বিবৃতি প্রকাশ করা হয়নি।

হাসপাতালের একটি সূত্র জানায়, গতকাল রাত দেড়টা নাগাদ লতা মঙ্গেশকরকে হাসপাতালে আনা হয়। সেখানকার জ্যেষ্ঠ পরামর্শক ফারুখ ই উদওয়াড়িয়ার তত্ত্বাবধানে আইসিইউ-তে ভেন্টিলেটর সাপোর্টে রয়েছেন তিনি। শ্বাসকষ্টের পাশাপাশি লতা মঙ্গেশকরের নিউমোনিয়া এবং হৃদযন্ত্রের সমস্যা ধরা পড়েছে বলেও হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে।

আগের দিন রোববার পানিপথ ছবিতে অভিনয় করার জন্য প্রবীণ অভিনেত্রী পদ্মিনী কোলাপুরেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় শুভেচ্ছা জানান লতা। এর কয়েক ঘণ্টা পরেই তাঁর অসুস্থতার খবর পাওয়া গেল। গত ২৮ সেপ্টেম্বর লতা মঙ্গেশকর ৯০ বছরে পা দিয়েছেন লতা মঙ্গেশকর।

সাত দশক ধরে দর্শক ও সমালোচক হৃদয় তৃপ্ত করে চলা ভারতীয় সংগীতের এই জীবন্ত কিংবদন্তি ১৯২৯ সালে ভারতের ইন্দোরে জন্মেছিলেন। কিন্তু তাঁর সংগীত ভারত ছাপিয়ে তাঁকে পৌঁছে দিয়েছে বিশ্বসংগীতের দরবারে লতা মঙ্গেশকর তাঁর ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন ১৯৪২ সালে, মারাঠি গান গেয়ে। ১৯৪৬ সালে তিনি প্রথম হিন্দি সিনেমার জন্য গান করেন। বসন্ত জোগলেকরের ‘আপ কি সেবা মে’ ছবিতে তিনি ‘পা লাগু কার জোরি’ গানটি গেয়েছিলেন। দুই বছর পর সুরকার গুলাম হায়দার তাঁকে প্রথম বড় সুযোগ দেন। ‘মজবুর’ ছবিতে ‘দিন মেরা তোরা’ গানটির পর লতাকে আর পেছনে তাকাতে হয়নি।

সংগীতের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি গান রেকর্ডের ইতিহাস আশা ভোঁসলের। তিনি গেয়েছেন প্রায় দশ হাজার গান। গিনিজ বইয়ের এ রেকর্ডটি ছোট বোন আশার হওয়ার আগে ছিল লতা মঙ্গেশকর। লতা গেয়েছেন প্রায় সাড়ে সাত হাজার গান। লতা মঙ্গেশকর প্রায় ৩৬টি ভাষায় গান করেছেন। এর মধ্যে আছে বাংলাও। ‘প্রেম একবার এসেছিল নীরবে’, ‘আষাঢ় শ্রাবণ মানে না তো মন’, ‘ও মোর ময়না গো’, ‘ও পলাশ ও শিমুল’, ‘আকাশপ্রদীপ জ্বেলে’সহ আরও অনেক বিখ্যাত বাংলা গানের কণ্ঠ তাঁর।

২০০১ সালে লতা মঙ্গেশকর ভারতের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সম্মান ভারতরত্ন পেয়েছিলেন। ১৯৮৯ সালে পেয়েছিলেন দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কার।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।