ইরানে বিধ্বস্ত বিমানের ১৮০জনের কেউ বেঁচে নেই

আন্তর্জাতিক ৮ জানুয়ারি : ইরানের রাজধানী তেহরানে ১৮০ জন আরোহী নিয়ে ইউক্রেনের একটি যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় কোনো আরোহী বেঁচে নেই। আজ বুধবার (৮ জানুয়ারি) সকালে তেহরানের ইমাম খোমেনি বিমানবন্দর থেকে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের উদ্দেশে উড্ডয়ন করে বিমানটি। উড্ডয়নের পরপরই ইউক্রেন এয়ারলাইন্সের বিমানটি বিধ্বস্ত হয়।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, তেহরানের দক্ষিণ-পশ্চিমে পারান্দ শহরে বোয়িং-৭৩৭ মডেলের বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। যান্ত্রিক ত্রুটির কারণেই বলে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। তবে ওয়াশিংটনের সঙ্গে তেহরানের বিদ্যমান উত্তেজনার মধ্যে এ দুর্ঘটনা নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

রাডারের তথ্য অনুযায়ী, ইউক্রেনের আন্তর্জাতিক এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট পিএস৭৫২ বিমানটি তেহরানের ইমাম খামেনি বিমানবন্দর থেকে সকাল ৬টায় যাত্রা করেছিল। বিমানটিতে ১৮০ আরোহী ছিল।

বিমানটি উড্ডয়নের মাত্র ৩ মিনিটের মাথায় বিধ্বস্ত হয়েছে বলে ইরানের একটি টেলিভিশনের খবরে বলা হয়েছে। একটি ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, বিমানটি আকাশ থেকে মাটিতে পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই এতে আগুন ধরে গেছে। বিমানটি উড্ডয়নের পর মাটি থেকে ৭ হাজার ৯২৫ ফুট ওপরে উঠেছিল। এর পর তেহরানের ইমাম খামেনি বিমানবন্দরের কাছেই এটি বিধ্বস্ত হয়।

ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবরে বলা হয়েছে, ওই বিমানটিতে থাকা সব আরোহীই মারা গেছেন। বোয়িং ৭৩৭ বিমানটি তেহরানের পারান্দ শহরতলির কাছে বিধ্বস্ত হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

ইরানের বেসামরিক বিমান চলাচল সংস্থার মুখপাত্র রেজা জাফরজাদে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ইতোমধ্যেই ঘটনাস্থলে বেসামরিক বিমান চলাচল দফতরের তদন্ত টিম পাঠানো হয়েছে। পরে এ ব্যাপারে আমরা আরও বিস্তারিত জানাব।

বোয়িংয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, দুর্ঘটনার ব্যাপারে সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের ব্যাপারে তারা সজাগ রয়েছে। এ বিষয়ে আরও তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা করছে বোয়িং।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।