শীতে কাঁপছে রাজধানী ঢাকা

ঢাকা ৮ জানুয়ারি : দিনে সূর্যের দেখা মিললেও চলতি মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা পেয়েছেন রাজধানীবাসী। এবার হাড় কাঁপানো শীতে কাঁপছে ঢাকার মানুষ। এতে করে নাকাল হয়ে পড়েছে জনজীবন। বর্তমানে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিরাজ করা শৈত্যপ্রবাহ ছড়িয়ে পড়বে সারা দেশে, এমনটাই জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) ভোর থেকে শুরু করে দিনের বেশিরভাগ সময়ই শীত অনুভূত হয়েছে। দেশের উত্তরাঞ্চলের পর এ দিন ঢাকাবাসী শীতে কাবু। শীতের প্রকোপ আগামী আরও কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, পৌষ শেষে মঙ্গলবার চলতি মৌসুমে রাজধানী ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১১ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। আর শৈত্যপ্রবাহের মধ্যে এ দিন পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় তাপমাত্রা ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।

এই মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার দিনে ঢাকার রাস্তায় মানুষকে শীতের ভারী পোশাকে চলাচল করতে দেখা গেছে।

আবহাওয়াবিদ মো. আবুল কালাম মল্লিক বলেন, গত ৩০ বছরের হিসাব অনুসারে এ দিন ঢাকায় যে তাপমাত্রা থাকার কথা তার থেকে ১ ডিগ্রি কম। ১৯৫৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৪ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়।

তিনি বলেন, উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ১০ কিলোমিটার বেগে বা তার চেয়ে বেশি বাতাস প্রবাহিত হলে শীত বেশি অনুভূত হয়। আজ বাতাসের সেই অবস্থা বিরাজ করছে। এ কারণে শীত বেশি অনুভূতি হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, আগামী দু-একদিন তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে। বুধবারও এই পরিস্থিতি অব্যাহত থাকবে। বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলে হালকা বৃষ্টি হবে। বৃষ্টিতে তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং শীত আরও বেশি অনুভূতি হবে। এরপর জানুয়ারি মাস জুড়েই তাপমাত্রা ওঠানামা করবে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, গোপালগঞ্জ, পাবনা, যশোর ও টাঙ্গাইল অঞ্চলের ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। যা আগামী কয়েকদিন অব্যাহত থাকতে পারে।

এ দিন রংপুরে ৯ দশমিক ৫, রাজশাহীতে ১০ দশমিক ১, ময়মনসিংহে ১১, বরিশালে ১১ দশমিক ৩, খুলনায় ১১ দশমিক ৮, সিলেটে ১২ দশমিক ৩ এবং চট্টগ্রামে ১৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।