‘জীবাণুনাশক স্প্রে’র পর চাঁদাদাবী’ না দেয়ায় হামলা; নিহত ১

টাঙ্গাইল ২ ৯ এপ্রিল ২০২০ : ‘টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই-সখীপুর আঞ্চলিক সড়কে পুলিশের উপস্থিতিতে যানবাহন থামিয়ে জীবাণুনাশক স্প্রে করে চাঁদা আদায়ের ঘটনায় একজন নিহত হয়েছে’। ‘সোমবার দুপুরে আবদুল মান্নান (৪৫) নামে ওই ব্যক্তির কাছে চাঁদা দাবী করলে তিনি অস্বীকৃতি প্রকাশ করলে চাঁদা উত্তোলনকারিরা ক্ষিপ্ত হয়ে তার উপরে হামলা চালালে তার মৃত্যু হয়।

‘তিনি মির্জাপুর উপজেলার বাঁশতৈল ইউনিয়নের বংশীনগর গ্রামের দীঘিবাড়ি এলাকার ইসমাইল হোসেনের ছেলে। পেশায় তিনি চা বিক্রেতা ছিলেন’।

‘নিহতের পারিবার ও প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছে, করোনা সংক্রমণের কারণে বিভিন্ন এলাকায় লকডাউন শুরু হয়। এরপর থেকে গোড়াই-সখিপুর সড়কে চলাচলকারী যানবাহনগুলোকে মির্জাপুর ও সখীপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী তক্তারচালা এলাকার চৌরাস্তা মোড়ে বাঁশ দিয়ে গতিরোধ করে ওই এলাকার কয়েকজন যুবক জীবাণুনাশক স্প্রে করতেন। পুলিশের সহযোগিতায় তাদের নেতৃত্ব দিতেন তক্তারচালা বাজারের রুহুল আমিন, মজিবর রহমান ও বিমল। একই সঙ্গে তারা যানবাহনের মালিকের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করে আসছিলেন’।’ গত শনিবার দুপুরে সখিপুর থেকে গোড়াইগামী এক মোটরসাইকেল আরোহীকে থামিয়ে তারা জীবাণুনাশক স্প্রে করে চাঁদা দাবি করেন। কিন্ত চাঁদা না দিয়ে ওই ব্যক্তি সেখান থেকে চলে যেতে চান। এ সময় ঘটনাস্থলে থাকা রুহুল আমিন নামে এক যুবক তার হাতের লাঠি দিয়ে পেছন থেকে মোটরসাইকেল আরোহীকে ঢিল ছুড়েন। এতে ওই মোটরসাইকেল আরোহী নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বিপরীত দিক থেকে আসা সাইকেল আরোহী আবদুল মান্নানকে ধাক্কা দেন। এতে দুজনই পড়ে আহত হন। পরে স্থানীয়রা আহত দুইজনকে উদ্ধার করে প্রথমে সখিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সেখানে আবদুল মান্নানের অবস্থার অবনতি হলে কুমুদিনী হাসপাতালে পাঠানো হয়। দুইদিন পরও তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য সোমবার দুপুরে ঢাকায় নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়’।

এলাকাবাসী বলছে, ‘সড়কে যানবাহনে থামিয়ে জীবাণুনাশক স্প্রে করে চাঁদা আদায়ের স্থানে সখীপুর থানার উপরিদর্শক (এসআই) ওমর ফারুকসহ পুলিশ সদস্যরা কর্মরত ছিলেন। দুর্ঘটনার পর আহতদের উদ্ধার করে এলাকাবাসীর সহায়তায় পুলিশ হাসপাতালে পাঠায়’।

‘ঘটনাস্থলে দায়িত্ব পালনকারী আনসার সদস্য মজিবর রহমান বলেন, মোটরসাইকেলচালক দ্রুত গতিতে যাচ্ছিল। এ সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি সাইকেলের সঙ্গে ধাক্কা লাগলে দুজনই আহত হন। পরে তাদের হাসপাতালে পাঠানো হয়’।

‘এসআই ওমর ফারুক ঘটনার দিন সেখানে উপস্থিত ছিলেন উল্লেখ করে বলেন, চাঁদা আদায়ের অভিযোগ সত্য নয়’।

‘মির্জাপুরের বংশাই স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ ওই গ্রামের বাসিন্দা আমজাদ হোসেন জানান, পুলিশের উপস্থিতিতে তারা সড়কে বাঁশ ফেলে যানবাহনে স্প্রে করে টাকা উত্তোলন করছিলেন বলে শুনেছেন’।

‘সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হোসেন বলেন, দুপুরে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে চেকপোস্টে চাঁদাবাজির সত্যতা পাননি। ওই চেকপোস্টের এখন থেকে পুলিশ সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবে’।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।