রাজশাহী মহানগর কৃষকদলের আলোচনা সভা দোয়া মাহফিল

নিজস্ব প্রতিনিধি : রাজশাহী মহানগর কৃষকদলের আয়োজনে আজ শনিবার বাদ আসর নগরীর মালোপাড়াস্থ বিএনপি কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ১৩তম কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে এই দোয়া ও আলোচনা সভা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগর কৃষক দলের আহবায়ক ওয়াদুদ হাসান পিন্টু। প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সহ-সম্পাদক, রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক রাসিক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল।

বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগর ‌বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন, মহানগর বিএনপি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল হক রানা জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন উজ্জল, মহানগর বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট রইসুল ইসলাম ও মহানগর বিএনপি’র দপ্তর সম্পাদক নাজমুল হক ডিকেন। সভা সঞ্চালনা করেন মহানগর কৃষক দলের সদস্য সচিব গোলাম সাকলাইন ইকো।

আরো উপস্থিত ছিলেন কৃষক দলের যুগ্ম আহবায়ক আনোয়ার জাহিদ, জি.এম সালাম রোজ ও ডলার, মহানগর যুবদলের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সুইট, জেলা যুবদলের সভাপতি মোজাদ্দেদ জামানী সুমন, মহানগর যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাইনুল হক হারু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জাকির হোসেন রিমন, সাধারণ সম্পাদক আবেদুর রেজা রিপন, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও রাজশাহী মাহনগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রবি, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামান জনি, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম জনি ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাহিন আহম্মেদসহ বিএনপি, কৃষকদল, যুবদল ও ছাত্রদলসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীবৃন্দ।

প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি বলেন, এই সরকারের সাথে আর কেউ নেই। আছে শুধু গুটিকয়েক প্রশাসন ও আইনশৃংখলা বাহিনীর কর্মকর্তা। সাধারণ জনগণ এবং প্রশাসনসহ আইনশৃখলা বাহিনীর শতকরা ৮০ভাগ কর্মকর্তা-কর্মচারী এখন সরকারী দলকে আর সহ্য করতে পারছেনা। কারন সরকারের সীমাহীন দূর্নীতি, খুন, গুম, টেন্ডারবাজি ও নতজানু পররাষ্ট্র নীতি দেখে তারা অতিষ্ট হয়ে পড়েছেন। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের লাগামহীন মূল্য, করোনা পরীক্ষা নিয়ে দূর্নীতি ও মেগা প্রকল্পের নামে হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট এবং সরকারী দলের একেবারে তৃনমুল পর্যায়ের নেতাদের সিমাহীন দুর্নীতি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে সাধারণ জনগণ অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। জনগণ এখন এই বিনা ভোটের সরকারের কবল থেকে মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে।

তারা আরো বলেন, দেশের জনগণকে এই ফ্যাসিস্ট ও রাতের আঁধারের সরকারের কবল থেকে মুক্তি দিতে পারে একমাত্র বিএনপি। এই সরকার বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে ভয় পায়। সেজন্য তাদের বিরুদ্ধে শত শত মামলা দিয়ে নিজেদের মত করে অবৈধভাবে সাজা প্রদান করেছে। যতই মামলা ও সাজা প্রদান করা হোকনা কেন তারেক রহমান দেশে আসবেন এবং খালেদা জিয়া সুস্থ হয়ে আবার দলের হাল ধরে জনগণকে মুক্তির পথ দেখাবে। তাঁরা বলেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ছিলেন কৃষক জনতার প্রাণের নেতা।

তিনি কৃষি ও কৃষকের ভাগ্য উন্নয়নে মাঠে থেকে কাজ করে গেছেন। কৃষকের দুঃখ দুর্দশা লাঘবের জন্য কৃষকদল গঠন করেছিলেন বলে জানান তাঁরা। দেশের মানুষ, কৃষি, কৃষক এবং অর্থনীতিকে বাঁচাতে এই সরকারের পতন এখন অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। আগামীতে সরকার পতনের আন্দোলনে সকলকে একসাথে রাজপথে থাকার আহবান জানান তাঁরা। বক্তব্য শেষে বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ তাঁর পরিবারের সদস্যর রোগমুক্তি ও মুসলিম উম্মাহর শান্তি এবং প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান, ছেলে আরাফাত রহমান কোকো ও বিশ্বের সকল মৃত ব্যক্তির আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।