রাজশাহীতে বীর মুক্তিযোদ্ধা আয়েশা খানমের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত

রাজশাহীতে বীর মুক্তিযোদ্ধা আয়েশা খানমের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিতপ্রেস বিজ্ঞপ্তি : বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ রাজশাহী জেলা শাখার উদ্যোগে আজ বুধবার বিকাল ৪.০০টায় মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগারে মিলনায়তনে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা,নারী আন্দোলনের অগ্রদূত, যোগ্য ও দক্ষ, সকল প্রগতিশীল আন্দোলনের সক্রিয় সংগঠক নারী নেত্রী সংগঠনের নিবেদিত প্রাণ আয়েশা খানমের স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়। সভা সভাপত্বি করেন সংগঠনের সভাপতি কল্পনা রায়। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক অঞ্জনা সরকার। প্রধান অতিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সমাজ সেবী শাহিন আক্তার রেনী। অনুষ্ঠানটি পরিচালনায় ছিলেন ভারপ্রাপ্ত আন্দোলন সম্পাদক অনুসূয়া সরকার। তাঁর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মোমবাতি প্রজ্জলন এবং ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত থেকে স্মৃতিচারণ করেন বিশিষ্ট সমাজ সেবী শাহিন আক্তার রেনী বলেন, আয়শা খানমের নেতৃত্বে নারীরা আরও এগিয়ে যাবে তিনি নারীদেও অনুপ্রেরনা। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ রাজশাহী জেলা শাখার সাবেক সভাপতি আবেদা রায়হান বুলি, প্রশিক্ষন গবেষণা পাঠাগার সম্পাদক সেলিনা বানু, মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান আলী বরজাহান, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন সংস্থা-এর সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, ডা: এফ.এম.এ জাহিদ পরিবর্তন এর নির্বাহী পরিচালক রাশেদ রিপন, বরেন্দ্র উন্নয়ন প্রচেষ্টার নির্বাহী পরিচালক ফয়েজুল্লাহ চৌধুরী, এ্যাড. নাসরিন আখতার, ছাত্রনেতা তামিম সিরাজী। বক্তারা বলেন আয়েশা খানম এক ব্যক্তি নয় তিনি নিজেই একটি প্রতিষ্ঠান। সভা শেষে সভপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কল্পনা রায় বলেন, উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানায় এবং বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ রাজশাহী জেলা শাখার পক্ষে গভীর ভাবে শোকাহত। তাঁর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন। সভায় আয়েশা খানম সম্পর্কে বকলেন,

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা,নারী আন্দোলনের অগ্রদূত, যোগ্য ও দক্ষ, সকল প্রগতিশীল আন্দোলনের সক্রিয় সংগঠক নারী নেত্রী সংগঠনের নিবেদিত প্রাণ আয়েশা খানম এর মুত্যকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। গত শনিবার ২ জানুয়ারী’২০২১ ভোরে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে রাজধানীর বিআরবি হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ডা. মালেকা বানু গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। সকাল ৮.০০টায় আয়েশা খানমের মরদেহ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নিয়ে তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়। পরে নেত্রকোনায় জানাজা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হয়। ১৯৪৭ সালের ১৮ অক্টোবর নেত্রকোনার গাঁবড়াগাতিতে জন্মগ্রহন করেন। বাবা গোলাম আলী খান ও মা জামাতুন্নেসা খানম। হামিদুর রহমান শিক্ষা কমিশন বাতিলের দাবিতে ১৯৬২ সালের ছাত্র আন্দোলন থেকেই ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে সম্পর্ক আয়েশা খানমের।

তবে ১৯৬৬ সাল থেকে ছাত্র আন্দোলনে পুরোপুরি সক্রিয়ভাবে জড়িয়ে পরেন তিনি । ফলে ঊনসত্তরের গণ অভ্যুন্থান, সত্তরের নির্বাচন এবং একাত্তরের অসহযোগ আন্দোলনসহ স্বাধীনতা যুদ্ধের পথে এগিয়ে যেতে যেসব আন্দোলন-সংগ্রাম সংঘটিত হয়েছিল সবগুলোতেই তিনি সামনে সারিতে ছিলেন। ১৯৭১ সালে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্রী এবং সংগ্রামী নেত্রী আয়েশা খানম ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ- সভাপতি ছিলেন । এছাড়া রোকেয়া হলের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ও সহ- সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।