ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামীকে মাদকসহ আটকের পরে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ

ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামীকে মাদকসহ আটকের পরে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগনিজস্ব প্রতিনিধি : রাজশাহীর কাঁটাখালি শ্যমপুর ১০ নং চরে মাদকের চালানসহ তিন মাদক কারবারিকে গ্রেপ্তারের পরে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার বেলা ১২ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। মাদকসহ আটকের পরেও ছেড়ে দেয়ার একটি অডিও রেকোডিং পাওয়া গেছে। অডিও রেকোডিং এ শাহাপুর বিওপির সিরাজ নৌকাসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে ও তাদের কাছে গাঁজা পাওয়া গেছে বলে স্বীকার করেন।

প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানান, চারঘাট ইউসুবপুর এলাকার মাদক মামলার ওয়ারেন্ট ভুক্ত পলাতক আসামী ইউসুবপুর এলাকার মো জিয়ারত আলীর ছেলে মো আশিক আলী (২৫) ও মাইনুল ইসলামের ছেলে মো তন্ময় (২৪) এবং ইউসুবপুর এলাকার জাহাঙ্গীর ইসলামের ছেলে মো আন্তর (২৬) শুক্রবার বেলা ১২ টার দিকে একটি নৌকা নিয়ে ইউসুবপুর থেকে ১০ নং মধ্যচর কাঁটাখালি থেকে মাদকের একটি চালন নিতে নৌকাতে করে ইউসুবপুর পদ্মা নদী দিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন। এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিজিবি শাহাপুর বিওপি ক্যাম্পের একটি টহল দল ১০ নং চরে পদ্মা নদীতে অভিযান পরিচালনা করে। বিজিবি শাহপুর বিওপি ক্যম্পের টহল দলের হাবিলদার সিরাজ, নায়ক জাকির ও ২ জন বিজিবি সদস্য নিয়ে অভিযান চালায়।

এসময় ইউসুবপুর এলাকার মো জিয়ারত আলীর ছেলে মো আশিক আলী (২৫) ও মাইনুল ইসলামের ছেলে মো তন্ময় (২৪) এবং ইউসুবপুর এলাকার জাহাঙ্গীর ইসলামের ছেলে মো আন্তর (২৬) কে নৌকায় থাকা অবস্থায় তাদের কাছে থেকে ৫ পাতা
হেরোইন, এক কেজি গাঁজা ও ১৭ পিচ ইয়াবা এবং ১০ পিচ ফেনসিডিলসহ হাতে নাতে আটক করে। এসময় ওই নৌকাতে মাদক কারবারিদের সাথে বিজিবির এফএস কামরুল সাথে ছিলো। তবে বিজিবির এফএস কামরুলের সাথে অন্য কোন বিজিবির সদস্য ছিলোনা। এসময় এফেস কামরুলের সুপারিসে মাদকসহ আটকের পরেও তাদের তিনজনকে ছেড়ে দেয় শাহাপুর ক্যাম্পের বিজিবিরা।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ইউসুবপুর বিওপি ও সাহপুর বিওপিতে কর্মরত বিজিবির এফএস কামরুল ইসলাম দীর্ঘদিন যাবত ওই এলাকার মাদক কারবারিদের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলেছে। মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে থেকে মাসোয়ারাসহ বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত কামরুল ইসলাম।

এছাড়া ইউসুবপুর এলাকার মাদক মামলার ওয়ারেন্ট ভুক্ত পলাতক আসামী আশিক, তন্ময় ও অন্তরের সাথে যোগসাজশে ইউসুবপুর ও টাংঙ্গন এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের মাদক ১০ নং মধ্য চার থেকে নৌকাতে করে নিয়ে গিয়ে নিরাপদে ওই সব মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে পৌছে দিয়ে মাদকের চালান প্রতি কমিশনে টাকা নেয়। ইউসুবপুর এলাকার আশিক, তন্ময় ও অন্তরের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। এ তিনজন বিজিবির এফেস কামরুলের ছত্রছায়াতে নিজেদের প্রশাসনের লোক পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজি, ছিনতাই, মাদক কারবারি, চোরাচালান চক্রের সাথে জড়িত বলে একাধিক স্থানিয় এলাকাবাসীদের অভিযোগ। এ বিষয়ে বিজিবির এফেস কামরুল ইসলামের ০১৭৫৩৩৭৬১৩০ এ নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে রং নাম্বার বলে মুঠোফোন কেটে দেন তিনি।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।