নববধূকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে যৌতুক না দেয়ায় এক নববধূকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সদর উপজেলার ব্রাহ্মণকান্দি গ্রামের মৃত শনু মিয়ার মেয়ে মুক্তার সাথে আড়াই মাস আগে করিমগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম ভাটি গাঙাটিয়া গ্রামের ইবরাহীমের পুত্র রফিকের বিয়ে হয়। যৌতুক না দেয়ায় বিয়ের পর থেকেই স্বামীর পরিবারের লোকজন তাকে নির্যাতন করে আসছিল।

যৌতুকের দাবি পূরণ না করায় গত ৮ মার্চ রাতে মুক্তার শরীরে ডিজেল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। তার চিৎকারে লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে জেলা ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি ঘটলে চিকিৎসক দগ্ধ মুক্তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।

সেখান থেকে মুক্তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে প্রেরণ করে। স্বামীর বাড়ির লোকজন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে করিমগঞ্জে নিয়ে আসে। আবার অবস্থার অবনতি ঘটলে মঙ্গলবার কিশোরগঞ্জ জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে মুক্তা মারা যান।

মুক্তার মা লুৎফুন্নেসা অভিযোগ করে বলেন, বিয়ের আগে আমার কাছে মুক্তার শাশুড়ি দেড় লক্ষ টাকার যৌতুক দাবি করেন। যৌতুক না দেয়ায় মুক্তার শরীরে ডিজেল ঢেলে গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়।

করিমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মজিবুর রহমান বলেন, এখনও পর্যন্ত কেউ অভিযোগ নিয়ে আসেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।