ফেঞ্চুগঞ্জে ভবন নির্মানে অনিয়মের অভিযোগ

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ শাহাজলাল সারকারখানার আবাসিক ভবন নির্মানে প্রশাসনের নাকের ডগায় অবৈধ ভাবে টিলা কেটে ব্যবহার করা হচ্ছে ভিটি বালুর পরিবর্তে লাল মাটি।
প্রশাসন দেখে ও না দেখার ভান করছে বলে ও অভিযোগ রয়েছে। শাহাজলাল সারকারখানার নির্মিত আবাসিক ভবন মেসার্স এস আর ট্রেডিং ও মেসার্স আহমদ ট্রেডিংয়ের নির্মিতব্য ভবনে টিলার লাল বালু ব্যাবহার হচ্ছে।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় মেসার্স এস আর ট্রেডিং ও মেসার্স আহমদ ট্রেডিংয়ের নির্মিতব্য ভবনে ড্রেজারের বালু পরিবর্তে কম দামে পাওয়ায় ঠিকাদরী প্রতিষ্টান ভিটি বালু হিসেবে এই লাল মাটি কিনছে এমন অভিযোগে করেন সচেতন মহলের বেশ কয়েক জন।
সাইফুল ইসলাম বলেন লাল মাটি সবাই ব্যবহার করছে, প্রশাসন দেখে ও না দেখার ভান করছে। এরকম আরো অনেকেই অভিযোগে করেন লাল মাটি ব্যবহার নিয়ে।
একটি স্হানীয় সূত্র দাবি করে আসছে এই প্রতিষ্টানের ম্যানেজার আব্দুল মান্নান ‘ই লাল মাটি ক্রয় করে আসছেন মোটা অংকের কমিশনের বিনিময়ে। তিনি বিভিন্ন পার্টিকে কাজ পাইয়ে দেন কমিশনের বিনিময়ে।
এই ব্যাপারে কথা হয় ম্যানেজার মান্নানের সাথে তিনি বলেন, লাল মাটি আমরা অর্ডার দেই না, পার্টি এনে দেয় তাই আমাদেরকে চাপে পড়ে নিতে হয়, আমাদের সাথে কথা ড্রেজারের বালু দেওয়ার।
লাল মাটি কোথা থেকে আনা হচ্ছে আর আপনারা’ই বা লাল মাটি নিচ্ছেন কেন এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন তারা বলেন, তারা প্রভাবশালী তাই আমাদেরকে চাপে পড়ে নিতে হচ্ছে।
পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি অাছে কি না জানতে চাইলে বলেন, না তা নেই তবে আমরা সরাসরি নিচ্ছি না। একের পর এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি ব্যস্ততা দেখিয়ে এড়িয়ে গেলেন।
এদিকে সাধারন মানুষের প্রশ্ন তাহলে কি শাহজালাল সারকারখানার সব ভবন নির্মানে লাল মাটির ব্যাবহার হয়েছিল? পরিবেশ অধিদপ্তর লাল মাটির ব্যাবহারে দেখে ড্রেজার বালি মনে করে এড়িয়ে আসছে? ভবন নির্মানে ইঞ্জিনিয়ার লাল মাটির কি অস্তিত্ত খুজে নাই না কি দেখে না দেখার ভান করছে?
শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।