বিএনপি এখন নালিশ পার্টিতে পরিনত হয়েছে : ওবায়দুল কাদের

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নয় বছরে নয় মিনিটেরও একটি আন্দোলন করতে পারেনি বিএনপি। বলছে রোযার ঈদ, কোরবানীর ঈদ আবার বলেছে পরীক্ষার পর আন্দোলন করবে তারা। ক্ষমতাসীন সরকারের শেষ সময়ে আর কি আন্দোলন হবে। বিএনপি নেত্রী দূর্নীতি মামলায় দন্ডিত হয়েছে। বিএনপি বলে সরকার নাকি তাকে জেলে পাঠিয়েছে। এটা কি সরকারের আদেশ নাকি আদালতের আদেশ ? তাহলে আন্দোলন কার বিরুদ্ধে। এখন তারা আদালতের বিরুদ্ধে আন্দোলনের ডাক দিয়েছে। বিএনপি এখন নালিশ পার্টিতে পরিনত হয়েছে। ঘরে বসে প্রেস ব্রিফিংয়ে মিথ্যাচারের ভাঙ্গা রেকর্ড বাজায়। সরকার নাকি বিএনপিকে দেউলিয়া করে ফেলেছে। নীতিবাচক রাজনীতির জন্য বিএনপি দেউলিয়া হয়ে যাচ্ছে। আওয়ামীলীগের বিএনপিকে দেউলিয়া করতে হবেনা। আত্মঘাতি ও নীতিবাচক রাজনীতি করে বিএনপি জনবিচ্ছিন্ন ও সংকুচিত হয়ে পরেছে। তিনি বুধবার দুপুরে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামীলীগের কর্মী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, বিএনপি শুধু মুক্তিযুদ্ধের কথা বলে তারা মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ পালন করেনা। বিএনপি মুক্তিযুদ্ধের এটা কেউ বিশ্বাস করেনা। তাই বিএনপির আন্দোলনে কেউ সারা দেয়না। সাম্প্রদায়িক, জঙ্গীবাদের পিষ্টপোষক, গণতন্ত্র বিরোধী আর অশুভ শক্তি বিএনপিকে জনগণ আর ক্ষমতায় দেখতে চাননা। সেটা আগামী নির্বাচনে আবারও প্রমান হবে। যারা মানুষ পুড়িয়ে মারে তাদের হাতে কি দেশ নিরাপদ। এই মুক্তিযুদ্ধের দেশ বিএনপির হাতে নিরাপদ নয়। তারা কাজে কর্মে প্রমান করেছে তারা জঙ্গীবাদের সমর্থকদল।
মন্ত্রী আরো বলেন, নির্বাচনের আগেই টাঙ্গাইলে শতভাগ বিদ্যুতের নিশ্চয়তা দেয়া হবে। রাস্তা ঘাটের উন্নতি হয়েছে। এলেঙ্গ পর্যন্ত ফোর লেন, পাশে সার্ভিস লেনসহ আধুনিক রাস্তা হচ্ছে। এই রাস্তার ২৪টি ব্রীজের কাজ শেষ হয়েছে। ২৬টি মধ্যে ৩টি ফ্লাইওভার ব্রীজের কাজ ৭০ ভাগ শেষ হয়েছে আরো ১০টি রেল ওভার পাস ও আন্ডার পাশ নির্মিয়মান। ৬০টি কালর্ভাট এর মধ্যে ৫২টির নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। আগামী ঈদে ঢাকা টাঙ্গাইল ফোর লেনে যানজট থাকবেনা। আগামী ঈদ পর্যন্ত ৫০ কিলোমিটার রাস্তা পাকা হয়ে যাবে। বাকি রাস্তাও যানবাহন চলাচলের জন্য স্বাভাবিক করা হবে। ২৬টি ব্রীজের মধ্যে ২৪টি ব্রীজে যান চলাচল করবে।
তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সরকারের আমলে যে কাজ হয়েছে দেশের অন্যান্য সব সরকারের সময় এর ১০ ভাগের একভাগ কাজ হয়নি। জনগণ কি কাজ দেখে ভোট দেবে নাকি ভাষণ শুনে ভোট দেবে?
টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান ফারুকের সভাপতি অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড.আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাঁপা, তথ্য প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট তারানা হালিম প্রমুখ। টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম ভিপি জোয়াহেরের অনুষ্ঠান সঞ্চালনা এ সময় টাঙ্গাইলের বিভিন্ন আসনের সংসদ সদস্যসহ জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগীগের নেতাকমীরা উপস্থিত ছিলেন।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।