সিরাজগঞ্জে শিশু ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় সাতজনের যাবজ্জীবন

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে ১১ বছরের শিশু খুশি খাতুন ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় সাতজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে দণ্ডপ্রাপ্তদের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেয়া হয়।

সোমবার দুপুরে সিরাজগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ (প্রথম) আদালতের বিচারক মো. রফিকুল ইসলাম ছয় আসামির উপস্থিতিতে এ দণ্ডাদেশ দেন।

সাজার আদেশপ্রাপ্তরা হলেন, শাহজাদপুর উপজেলার মশিপুর গ্রামের মৃত সিরাজ সরকারের ছেলে আব্দুল হাকিত (৪৬), মৃত কোরবান ব্যাপারির ছেলে হাচেন আলী (৩৮), মৃত মনছের আলীর ছেলে লোকমান (৫৩), ইউনুস আলীর ছেলে হাসান আলী (৩৩), একই উপজেলার কায়েমপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে মো. রানা (৩৩), মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে নবির হোসেন (৩৬) ও বাতিয়ারপাড়া গ্রামের খোরশেদ আলীর ছেলে রফিকুল ইসলাম (৩৩)। এদের মধ্যে রফিকুল পলাতক রয়েছেন।

সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের এপিপি অ্যাডভোকেট আনোয়ার পারভেজ লিমন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলার বরাত দিয়ে তিনি জানান, শাহজাদপুরের কায়েমপুর গ্রামের সাহেব আলীর ১১ বছরের শিশু কন্যা খুশি খাতুন ২০১০ সালের ১৬ জুলাই বিকালে পার্শ্ববর্তী মশিপুর গ্রামের আব্দুল হাকিমের বাড়িতে তার মেয়ে আখি খাতুনের (৯) সঙ্গে খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। পরদিন বিকালে কায়েমপুর মৌজার একটি পাট ক্ষেত থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় ওইদিন রাতে শিশুটির মা সাগরি খাতুন বাদী হয়ে আব্দুল হাকিমকে একমাত্র আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত শেষে আটজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।

আলোচিত এ মামলা চলাকালে নবির মোল্লা নামের এক আসামির জেলহাজতে মৃত্যু হয়। রায় ঘোষণার সময় মামলার সাত আসামির মধ্যে ছয়জনকে আদালতে হাজির করা হয়।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।